সিনেমার দৃশ্য নহে। ট্রেনের সামনে প্রেমিকা,বাঁচাতে গিয়ে প্রেমিকের মৃত্যু

নরসিংদীর পলাশে প্রেমিকাকে বাঁচাতে গিয়ে দ্রুতগামী ট্রেনের ধাক্কায় সাইফুল ইসলাম নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ঘোড়াশাল রেলস্টেশনের পাশে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সাইফুল ইসলাম শিবপুর উপজেলার ধনুয়া গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে।

তিনি গাজীপুরের কালীগঞ্জে প্রাণ আরএফএল ফ্যাক্টরিতে শ্রমিকের কাজ করতো। ঘোড়াশাল পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম জানান, বিকেলে ওই দুই যুবক-যুবতী ঘোড়াশাল রেলস্টেশনে ঘুরতে আসে।

সেখানে তাদের মধ্যে মনমালিন্য হওয়ায় একপর্যায়ে প্রেমিকা নিতু আত্মহত্যা করতে রেললাইনে গিয়ে দাঁড়ায়। এ সময় পিছন থেকে ঢাকাগামী এগারোসিন্ধু নামক একটি ট্রেন আসতে দেখে

প্রেমিক সাইফুল দৌঁড়ে তাকে বাঁচাতে গিয়ে দ্রুতগামী ওই ট্রেনের ধাক্কায় মাথায় আঘাত পেয়ে ছিটকে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়।

এ সময় আহত হয় প্রেমিকা নিতু। খবর পেয়ে নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে। এছাড়া আহত নিতুকে ঢাকায় পুগু হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আরও সংবাদ= ব্যাগেজ রুলে আসছে বিশাল পরিবর্তন, শুল্কছাড়ে প্রবাসীরা আনতে পারবেন যত ভরি স্বর্ণ

বিদেশ থেকে স্বর্ণ আনার ক্ষেত্রে বড় পরিবর্তন আসছে। ব্যাগেজ রুলের আওতায় প্রবাসীরা শুল্ক ছাড়া ২৩ গ্রাম (২ ভরি) স্বর্ণ সঙ্গে আনতে পারবেন।

ব্যাগেজ রুলের আওতায় মহিলারা আনতে পারবেন ১১৭ গ্রাম (১০ ভরি)। এর বেশি আনলে রাষ্ট্রের অনুকূলে তা বাজেয়াপ্ত করা হবে। শুধু তাই নয়, ভরিপ্রতি দুই হাজার টাকা শুল্ককর দিয়ে বছরে শুধু একবারই সর্বোচ্চ ২০ ভরি স্বর্ণ বা রুপা আনা যাবে। ব্যাগেজ রুলের খসড়া পর্যালোচনা করে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

বর্তমানে ১০০ গ্রাম (৮.৫৭ ভরি) স্বর্ণালংকার বা ২০০ গ্রাম রুপার অলংকার আনা যায়। তবে এক ধরনের অলংকার ১২টির বেশি আনা যায় না। আর শুল্ক দিয়ে ২০০ গ্রাম ওজনের স্বর্ণের বার বা রুপার বার আনা যায়। স্বর্ণের বারের জন্য ভরিপ্রতি দুই হাজার টাকা এবং রুপার বারের জন্য ভরিপ্রতি ছয় টাকা শুল্ক নির্ধারিত আছে। খসড়া বিধিমালা অনুযায়ী, একজন ব্যক্তি বছরে একবার শুল্ককর ছাড়া স্থলবন্দর দিয়ে ব্যাগেজ রুলের আওতায় সর্বোচ্চ ৪০০ ডলারের সামগ্রী আনতে পারবেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*