মিয়ানমারে অস্ত্র বিক্রি বন্ধের আহ্বান জাতিসংঘের

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর কাছে অস্ত্র বিক্রি রুখতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরও বেশি কিছু করা উচিত-বলে মন্তব্য করেছে জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক কার্যালয়। কার্যালয় জানায়, সামরিক জান্তা দমনাভিযান ও সাধারণ জনগণকে নিপীড়ন ও ভয় দেখিয়ে সন্ত্রাসী তকমা দিয়ে দেশ শাসন করছে।

জান্তারদের বিরুদ্ধে গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ তুলেছে জাতিসংঘ। অপরদিকে জান্তা বলছেন, তারা দেশের ক্ষতি করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে।

জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক কার্যালয় মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে আরও বিচ্ছিন্ন করার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, এটি একটি অর্থবহ এবং টেকসই উপায়ে দেশ পরিচালনা করতে ও আর্থিক খাতে গভীর সংকট সমাধান করতে ব্যর্থ হয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে অস্ত্র বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা দিতে সদস্যদেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়ছেন মানবাধিকার বিষয়ক কার্যালয়। পাশাপাশি সামরিক বাহিনীর ব্যবসায়িক নেটওয়ার্ককে বৈদেশিক মুদ্রায় প্রবেশ করা থেকে বিরত রাখতেও নিষেধাজ্ঞা আরোপের সুপারিশ করেছে।

জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক কার্যালয় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি মিয়ানমারের জনগণকে সমর্থন দেয়ার আহ্বানও জানিয়েছেন।

জাতিসংঘ মানবাধিকার কার্যালয় হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন মিয়ানমারের ওপর ব্যাপক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এর পরও দেশটি প্রতিবেশীদের সঙ্গে বাণিজ্য অব্যাহত রয়েছে এবং বেশ কয়েকটি দেশ জান্তা সরকারকে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম সরবরাহ করছে।

কার্যালয়ে বলছে, রাশিয়া মিয়ানমারকে কমব্যাট যুদ্ধবিমান এবং সাঁজোয়া যান সরবরাহ করেছে, চীন যুদ্ধবিমান ও পরিবহন বিমান সরবরাহ করেছে, সার্বিয়া রকেট ও আর্টিলারি শেল সরবরাহ করেছে এবং ভারত একটি দূরবর্তী বিমান প্রতিরক্ষা স্টেশন দেয়ার পাশাপাশি একটি কিলোক্লাস সাবমেরিন দেশটির নৌবাহিনীকে দিয়েছে।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে এক অভ্যুত্থানে সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখল করার পর থেকে মিয়ানমারজুড়ে অস্থিরতা বিরাজ করছে। সামরিক বাহিনী গণতন্ত্রপন্থি প্রতিরোধ আন্দোলনকারীদের সঙ্গে লড়াই করছে আর সামরিক শাসন বিরোধী হাজার হাজার লোককে গ্রেপ্তার করে চলছে। একই সময় অভ্যন্তরীণ অশান্তি ও আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞায় চাপের মুখে পড়া অর্থনীতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করছে দেশটির সামরিক শাসকরা।

About admin

Check Also

নির্বাচনে আসলে আসুক না আসলে ফাকা মাঠেই গোল: শেখ হাসিনা

নির্বাচনে অংশ নেওয়া বা না নেওয়া রাজনতিক দলের ইচ্ছাধীন বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *